যশোর শহরতলীর শেখহাটিতে জোরপূর্বক জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগ

0
331

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর শহরতলীর শেখহাটিতে জোরপূর্বক জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে যশোর কোতয়ালী থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। অভিযোগটির তদন্ত করছেন উপশহর ফাঁড়ির ইনচার্জ।
অভিযোগে বলা হয়েছে, শেখহাটির পশ্চিমপাড়ার আবু দাউদ বিশ্বাসের স্ত্রী জাহানারা বেগম ২৬ শতক পৈত্রিক জমি ওয়ারেশ সূত্রে প্রাপ্ত হয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ ভোগদখল করছেন। যার সর্বশেষ জরিপ পর্চাও তার নামে। এই জমির এক অংশে ঘর করে ভাড়া দেয়া এবং অপর অংশে ধান চাষ করা হয়। গত বছর থেকে এই জমি দখলের চেষ্টা করছেন একই গ্রামের মৃত জালাল মুন্সির ছেলে কুতুব মুন্সি, বাবু মুন্সি, মাসুম মুন্সি, নাছিম মুন্সি এবং নূহ মুন্সির ছেলে কাইয়ুম মুন্সি, রবিউল মুন্সি ও তাদের ওয়ারেশরা।
অভিযোগে আরো বলা হয়েছে, গত ০৮ জুন মৃত জালাল মুন্সি ও নূহ মুন্সির ছেলেরা জাহানারার দখলীয় এই জমি তার অগোচরে চাষ করে চলে যায়। জাহানারার পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি জানতে পেরে স্থানীয়দের বললে তারা জালাল মুন্সি ও নূহ মুন্সির ছেলেদের সাথে যোগাযোগ করলে তারা গত ১২ জুন শুক্রবার বিষয়টি নিয়ে বসাবসি করবেন বলে জানান। কিন্তু এই দিন তারা বসাবসি করেনি।
পরদিন ১৩ জুন সকালে আবারো মৃত জালাল মুন্সি ও নূহ মুন্সির ছেলেরা ওই জমি পাওয়ার ট্রিলার দিয়ে চাষ করা শুরু করে। বিষয়টি জানতে পেরে জাহানারা এবং তার স্বামী ও ছেলে শহিদুল ইসলাম মিলন ঘটনাস্থলে যেয়ে তাদের জমি চাষে বাধা দিলে তাদের ওপর কুতুব মুন্সি, বাবু মুন্সি, মাসুম মুন্সি, নাছিম মুন্সি কাইয়ুম মুন্সি, রবিউল মুন্সি ও তাদের ওয়ারেশরা হামলা করে এলোপাতাড়িভাবে মারপিট করতে থাকে। এ সময় প্রতিবেশিরা এগিয়ে এসে দুর্বৃত্তদের প্রতিরোধ করলে তারা জাহানারা, তার স্বামী এবং ছেলে শহিদুল ইসলামকে খুন, জখমের হুমকি দিয়ে চলে যায়।
এ বিষয়ে ঘটনার দিন ১৩ জুন যশোর কোতয়ালী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন জাহানারা বেগম। অভিযোগে তিনি তার পরিবারের সদস্যদের জীবনাশংকার কথা উল্লেখ করে বিষয়টির আইনগত প্রতিকার দাবি করেছেন। অভিযোগটি তদন্ত করছেন যশোর উপশহর ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই আব্দুল লতিফ। তিনি বলেন, অভিযোগ পেয়ে আমি ঘটনাস্হলে গিয়েছিলাম। বিবাদীদের ( আসামী) কাউকে পাইনি। আগামী সোমবার (১৫ জুন) সকাল ১০টায় আসতে বলা হয়েছে, উভয়পক্ষকে। আসলে শুনে বুঝে আইনগত ব্যবস্হা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here