যশোরের ০৪নং ওয়ার্ড ভাটপাড়া কালীতলা পানিতে নিমজ্জ্বিত, দেখার কেউ নেই ?

0
302

নাসির উদ্দিন নয়ন, কুয়াদা (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরে সদর উপজেলার রামনগর ইউনিয়নের ০৪নং ওয়ার্ড ভাটপাড়া কালীতলা নামক জায়গাটি দীর্ঘদিন জলাবদ্ধ হয়ে আছে। যা দেখার কেউ নেই ? সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভাটপাড়া কালীতলার দণিপাশে পিযুষ কুমার মঙ্গলের পুকুর পাড় হতে পশ্চিমে আমজেদ গাজীর বাড়ি পর্যন্ত, উত্তরে কালীতলার শেষসীমানা পর্যন্ত সরকারী রাস্তার উপর আনুমানিক ১ ফুট পনি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে আছে। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, যুগের পর যুগ ধরে ভাটপাড়া কালীতলা হিন্দু ধর্মালম্বীদের পূজার স্থান।সরকারী রাস্তার পাশ দিয়ে কালভার্ট ও কাচা ড্রেন দিয়ে পানি নিষ্কাশিত হতো। কিন্তু বর্তমানে কিছু অসাধু ব্যক্তির ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য রাস্তার উপর পানি জমে থাকছে। তারা আরো বলেন, সরকারী রাস্তার উপর দোকানঘর নির্মান, বসতবাড়ির সীমানা নির্মাণ করে ব্যক্তিস্বার্থ হাসিল করে চলেছে।যার ফলে রাস্তা থেকে পানি নিষ্কাশিত হচ্ছে না। স্থানীয় দোকানদার ওসমান গণি বলেন, সামান্য বর্ষা হলেই এখানে পানি জমে থাকে, যা নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা কেউই করে না। ঘুর্ণিঝড় আম্পান পরর্বর্তী পানি জমে গেলে তারা নিজেদের উদ্দোগে টাকা দিয়ে স্যালোমেশিনের সাহায্য পানি নিষ্কাশন করেছেন।অপর এক দোকানী নজরুল ইসলাম বলেন, বর্ষা শুরু হওয়ার পর থেকে এখানে পানি জমে আছে। আমরা দোকান পরিচালনা করতে পারছি না। দোকানের সামনে এক/ দেড়ফুট পানি। একটু বেশি বৃষ্টি হলে দোকানের ভিতর পানি উঠে যায়, যা নিষ্কাশনের কোন সুযোগ নাই। আমরা চরম মানবেতর জীবন যাপন করছি। রাস্তায় চলাচলরত জনসাধারনের নিকট জলাবদ্ধতার কারন সম্বন্ধে জানতে চাইলে তারা বলেন, রাস্তার পূর্বে সাবেক ইউপি সদস্য শাহাজাহান কবিরের জমি, দেিন মাহবুবুর রহমান বাবুর বাড়ি ও মঙ্গলের পুকুর। ইতিপূর্বে এই জায়গা দিয়ে পানি নিষ্কাশিত হতো কিন্তু উক্ত জায়গায় দোকানঘর ও বসতবাড়ি নির্মাণ ও পানি নিষ্কাশনের কালভার্ট বন্ধ করে দেওয়ায় এস্থান থেকে পানি নিষ্কাশিত হয়না।রাস্তায় দীর্ঘদিন জমে থাকা পানি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় চলাচলরত জনগণের শরীরে চুলকানি, খোস-পাঁচড়ার মতো রোগ দেখা দিয়েছে। তাছাড়াও হিন্দু ধর্মালম্বী সম্প্রদায় উক্ত স্থানে পূজা-অর্চনা করতে পারছে না। এ রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রী, শ্রমজীবি মানুষসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ চলাচল করে। বর্তমানে রাস্তার উপর পানি জমে থাকায় তাদের চলাচলে ব্যাপক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। জলাবদ্ধতা সমস্যার বিষয়ে সাবেক ইউপি সদস্যদের নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান, সরকারী রাস্তার উপর দোকান ও বসতভিটা নির্মাণ করায় রাস্তার পানি নিষ্কাশিত হতে পারছে না।আমরা যে যার অবস্থান থেকে চেষ্টা করলে এ সমস্যার সমাধান করা সম্ভব। বর্তমান ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম লিটন বলেন, আমি ঘটনাটি সম্পর্কে জানতে পেরে পানি নিষ্কাশনের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। নিজ উদ্দোগে জাকির হোসেনের বাড়ির পাশ দিয়ে সরকারী রাস্তার পাশ দিয়ে কাচা ড্রেন তৈরি করি। কিন্তু এলাকার জনৈক রহমান ও ইদ্রিস আলীর লোকজন এ ড্রেন বন্ধ করে দেন। তাছাড়াও আমি ইউনিয়ন পরিষদের সার্ভেয়ার এনে মাপজোপ করাই। এতে দেখা যায় সরকারী রাস্তার জায়গা দখল করে জনৈক মাসুদুর রহমান লিটন দোকানঘর নির্মাণ করে ভাড়া প্রদান করে আসছেন। ইতিপূর্বে এ স্থান দিয়ে রাস্তার পানি নিষ্কাশিত হতো। এস্থানে জমে থাকা পানির জন্য পাশ্ববর্তী বাড়ি ঘরের ল্কোজন তাদের শিশুদের নিয়ে চিন্তায় আছে। যে কোন মুহুর্তে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে তারা আশঙ্কা করছে। পানি নিষ্কাশন বিষষে ইউপি চেয়ারম্যান নাজনীন নাহার আলমগীরের কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, বিষয়টি আমরা শুনেছি কিন্তু এলাকাবাসী কোন লিখিত অভিযোগ করেননি। তাদের অভিযোগ পেলে আমরা যতদ্রুত সম্ভব যথাযথ ব্যবস্থা নেব। তারপরও মানবিক দিক বিবেচনা করে দ্রুত একটি কাচা ড্রেন নির্মান করে পানি নিষ্কাশেনের ব্যবস্থা করবো। জলাবদ্ধতা নিরসনে এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপরে আশু হস্তপে কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here